Keyword Cannibalization কী এবং এটি এসইওর জন্য খারাপ কেন?

What is Keyword Cannibalization?

কীওয়ার্ড ক্যানিবালাইজেশন (Keyword Cannibalization) তখনি হয় যখন আপনার ওয়েবসাইটে একাধিক পেইজ অথবা পোস্টে একই ধরনের কীওয়ার্ড বা বাক্যাংশ থাকে। এটাকে টপিক ডুপ্লিকেশন হিসাবেও উল্লেখ করা যেতে পারে। যদিও এটি একেবারেই অনিচ্ছাকৃত ভাবে ঘটতে পারে তবে একই কীওয়ার্ড একাধিক পেইজ অথবা পোস্টে থাকলে বিভিন্ন রকম সমস্যা হতে পারে এবং একই সাথে আপনার অন-পেইজ এসইও কে নষ্ট করে দিতে পারে। কাজেই আমাদের জানা উচিত এটা ক্যানো হয়? কিভাবে সনাক্ত করতে হবে এবং কিভাবে সমাধান করতে হয়

{getToc} $title={ Table of Content }

কীওয়ার্ড ক্যানিবালাইজেশন কী?

সহজ ভাষায় যদি বলি, কোনো ওয়েবসাইটে একাধিক পেইজ অথবা পোস্ট যা কিনা একই কীওয়ার্ড বা টপিক নিয়ে তৈরি তখন তাকে বলবো কীওয়ার্ড ক্যানিবালাইজেশন অর্থাৎ একটা নির্দিষ্ট কীওয়ার্ডের জন্য আপনার ওয়েবসাইটের অনেকগুলো পেইজ র‍্যাংক হতে পারে তবে একই কীওয়ার্ডের জন্যএকাধিক পেইজ র‍্যাংক হওয়া মানে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য ভালো খবর না কারন গুগলের চোখে এটা ওয়ান কাইন্ড অফ থ্রেট অথবা ক্রাইম

ক্যানিবালাইজেশন ওয়েবসাইটের জন্য খারাপ কেন?

Best SEO Expart In Bangladesh এবং Best SEO Expart In Bangladesh 2022 এখানে দুইটা কীওয়ার্ড আছে এবং দুটোর টপিক কিন্তু একই। এখন আপনি এই দুইটা কীওয়ার্ড দিয়ে আর্টিকেল লিখলেন। এই কীওয়ার্ডের জন্য গুগল দুইটা পেইজ র‍্যাংক করতে পারে। এখন এই একই রকম কীওয়ার্ডের জন্য গুগলের রোবট আসলে কনফিউজ হয়ে যায় যে, কোন পেইজকে সে র‍্যাংক দিবে। হতে পারে সে দুইটা পেইজকে র‍্যাংক দিবে অথবা কোনটাকেই দিবে না অথবা যেকোন একটিকে দিবে

আপনি হয়তো মনে করতে পারেন যে, একটা কীওয়ার্ডের জন্য আপনার ওয়েব সাইটের দুইটা পেইজ র‍্যাংক করেছে এটা আসলে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য ভালো খবর না কারন আপনি গুগলকে অথবা গুগলের রোবটকে কোন মতেই র‍্যাংকিং এর জন্য কনফিউজ বা ফোর্স করতে পারেন না। মনে রাখতে হবে যেহেতু একই ধরনের কীওয়ার্ড অনেকগুলো পেইজ তৈরি করছে অতএব গুগল কনফিউজ হয়ে যাচ্ছে র‍্যাংকিং দেয়ার জন্য। এতে করে আপনার ওয়েব সাইটের র‍্যাংকিং হারাতে পারেন অথবা পেনাল্টি ও খেতে পারেন

ক্যানিবালাইজেশনের কারনে কি কি সমস্যা হতে পারে?

Diminished Authority: প্রথমেই যে সমস্যা ধরা পড়বে তা হলে ওয়েবপেইজের CTR (Click through rate) কমে যাবে। মনে করেন Best SEO Expart In Bangladesh লিখে গুগলে সার্চ করলেন। এখন একই কীওয়ার্ড এর জন্য গুগল আপনার ওয়েবসাইটের দুটো পেইজকে শো করলো বা তিনটা পেইজকে। এবার কোন ভিজিটর দ্বিতীয় লিংকে ক্লিক করলো কারন তার হয়তো টাইটেল দেখে ভালো লেগেছে তাই সে ক্লিক করেছে কিন্তু গুগল এসইও এর  জন্য প্রথমে লিংক দিয়েছে সেটাতে ইউজার ক্লিক করছে না। এক্ষেত্রে কিন্তু যেকোন একটা আর্টিকেলের বা পোস্টের বা পেইজের Click through rate কমে যাচ্ছে। যেহেতু Click through rate কমে যাচ্ছে সেক্ষেত্রে প্রথমে থাকা আর্টিকেলটি কিন্তু তার র‍্যাংক হারাচ্ছে বা হারাবে

Unintentional Rankings: একই ওয়েবসাইটের দুইটা পেইজ যখন র‍্যাংক করে তখন ভিজিটর আসলে যেই পেইজটাতে ক্লিক করছে বা ভিজিট করছে তখন গুগল মনে করে এই পেইজটি অথরিটি সম্পন্ন এবং যেই পেইজটাতে ভিজিটর আসলে ক্লিক করছে না সেটাকে গুগল ভাবে পুয়র পেইজ। কাজেই এই পেইজটাও তার র‍্যাংক হারাবে। এটাও আপনার ওয়েবসাইটের জন্য খারাপ দিক

Suffering Conversion Rates: অন্যতম আরেকটা কারন হচ্ছে Conversion Rate কমে যাওয়া। মনে করেন আপনি “আমাজন এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে করবেন?” এ নিয়ে একটা পোস্ট লিখলেন এবং তার কিছুদিন পরে সেইম টপিকে আরেকটা পোস্ট লিখলেন। এবার যখন কেউ উক্ত কীওয়ার্ড লিখে সার্চ করছে তখন দুইটা পোস্ট ই দেখতে পাচ্ছে কিন্তু একটাতে ভিজিটর ক্লিক করছে আরেকটাতে ক্লিক করছে না। তার মানে দ্বিতীয় পোস্টে কনভার্সন রেইট কিন্তু কম হচ্ছে। দুটো পোস্ট যদি একসাথে লিখা হত বা একটা পোস্টে আর্টিকেলটা বড় করে লিখলে সব ইউজার কে এট্রাক্ট করতে পারতো এবং লং আর্টিকেল লিখার জন্য র‍্যাংকিং ও স্ট্রং থাকতো এবং কনভার্সন রেইট বেড়ে যেত

আরো অনেক সমস্যা হয় যেমন, ব্যাকলিংক অন্যতম সমস্যা - প্রতিটি পেইজ বা পোস্টের জন্য আলাদা করে ব্যাকলিংক তৈরি করতে হবে এতে করে গুগল আপনার পেইজকে প্রথমে আনলেও আপনার ওয়েবসাইটের জন্য নেগেটিভ ইমপ্যাক্ট পড়বে। তাছাড়া রিলেভেন্ট পেইজ অথবা সেইম কীওয়ার্ডের কারনে গুগল কিন্তু আপনার ওয়েবসাইকে ডি-ভ্যালু দিতে থাকবে যেটা আপনার ওয়েবসাইটের জন্য মোটেও ভালো খবর না

কখন মনে হবে এটা কোন সমস্যাই না?

যখন আপনার ওয়েবসাইটের দুইটা পেইজ গুগলের সার্চ রেজাল্টে থাকবে মানে প্রথম ও দ্বিতীয় অবস্থানে তখন আপনার কীওয়ার্ড ক্যানিবালাইজেশন সমস্যা সম্পর্কে খুব বেশি চিন্তা করার দরকার নেই। কারন আপনার এখনি পেইজ র‍্যাংকিং এবং ক্লিক-থ্রু রেট পরীক্ষা করা উচিত। যদি দেখেন  কিছুই পরিবর্তন না হয় এবং আপনার র‍্যাংকিং ধরে থাকে, তাহলে এগিয়ে যান

কীভাবে কীওয়ার্ড ক্যানিবালাইজেশন সনাক্ত করবো?

লিখাটা পড়ার সময়ে আপনার মনে হতেই পারে যে, আপনার ওয়েবসাইটের কন্টেন্ট গুলি এ সমস্যায় ভুগছে কিনা তা সহযেই বের করতে পারবেন। এর জন্য আপনি বিভিন্ন টুল’স ইউজ করতে পারেন অথবা আপনার সন্দেহজনক যে কোনও নির্দিষ্ট কীওয়ার্ডের জন্য আপনি সহজেই আপনার ওয়েবসাইটটি অনুসন্ধান করতে পারেন যার একাধিক কীওয়ার্ড রয়েছে

ক্যানিবালাইজেশন সমস্যা এড়াতে করনীয়

বুঝতেই পারছেন এ ধরনের সমস্যা কতটা গুরুত্বপুর্ন এবং এটা সমাধান করা বেশ সময় সাপেক্ষ বিশেষ করে  বিশেষ করে যখন আপনি একটি বড় ওয়েবসাইটে কাজ করছেন। যাইহোক, কীওয়ার্ড ক্যানিবালাইজেশন ঠিক করার সর্বোত্তম উপায় হল প্রথমেই এটিকে ঘটতে বাধা দেওয়া, এবং এটি ঠিক ততটাই গুরুত্বপূর্ণ যে, আপনি যে সমস্যাগুলি সমাধান করেছেন তা ভবিষ্যতে আর যেন না ঘটে।  এর জন্য কিছু বিষয় অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে


🔊 আমার মতামত - পুরো আর্টিকেল’টি পড়ে কি বুঝলেন? কমেন্টে জানান আমাকে আর হ্যা সময়ের সাথে সাথে SEO Rules আপডেট হতে থাকে। আপনাকে নিত্যনতুন আপডেট সম্পর্কে জানতে হবে এবং বুঝতে হবে

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Please validate the Captcha

নবীনতর পূর্বতন

যোগাযোগ ফর্ম